Thread Rating:
  • 0 Vote(s) - 0 Average
  • 1
  • 2
  • 3
  • 4
  • 5
টাটকা কচি স্বাদ
#1
কেমন লাগছে জানবেন বন্ধুরা ।

আমার নতুন গল্প । 
গরমের বন্ধের সময় অমর কোথায় যাবে ভাবছিল। ঠিক ওই সময় ওর বন্ধু রাণা একটা ভাল পরামর্শ দিল । পরামর্শ না বলে প্রস্তাব বললে ভাল । রাণাদের বাড়ি গ্রাম আজমপুর। রাণা শহরে থাকে হোস্টেলে, ছুটিছাটা পেলে গ্রামের বাড়িতে যায় । এবারে তাই গরমের ছুটিতে ও বন্ধু অমরকেও নিয়ে যেতে চাইল । 
দুপুরে যখন ওরা আজমপুর পৌচুল তখন পথঘাট অনেকটাই সুনশান হয়ে গেছে। অমরদের বিশাল বাড়ি । বাগান, পুকুর আর বিস্তীর্ণ যায়গা । বাড়ির সদস্য বলতে ওর মা রুমী দেবী আর দিদি সুমিতা । রাণার বাবা মারা গেছেন 4 বছর আগে। এছাড়া বাড়িতে সব রকম কাজের জন্য একটি বিশস্ত লোক আছে – সাজিদ, বয়স প্রায় ৪৪ – ৪৫ হবে।বাড়ির পেছনে বাগানে সজিদের কুটির ঘর । 
ক্লাস টেন এর পরিক্ষ্যা শেষ। এখন প্রায় মাস খানেক বন্ধ । আজমপুর এসে প্রথম দুদিনেই রানার সাথে অমর পুরো গ্রামটা ঘুরে দেখে ফেলেছে । নিরব জায়গা, বেশ পছন্দ অমরের। শহরের কোলাহল আর বন্ধুদের চিত্কার চেচামেচি কোনটাই ভাল লাগে না ওর। সুতরাং বন্ধু বলতে ওই রাণাই । ওর সাথেই মনের মিল হয়ে অমরের । 
বেশ ভালই লাগছিল অমরের এই আজমপুরে এসে । কিন্তু চারদিনের দিনই একটা সামান্য সমস্যা দেখা গেল । রানার বাবার জায়গা জমির কিছু কাজ বাকি উপলক্ষ্যে ওর মাকে যেতে হবে জেলা সদরে। সরকারি কাজ, না গেলেই নয়। রানাকেই নিয়ে যেতে হবে । অমরকে ওর মা রুমী দেবী বললেন – ‘বাবা তুমি এসেছ, এখন আমাদের তো যেতেই হবে। কিছু মনে করো না, দুদিনের ব্যাপার। সুমি আছে, সাজিদ আছে ওরা তোমার খেয়াল রাখবে । কেমন?’
-‘আরে মাসিমা, আপনি কেন এত ভাবছেন, আমার কোনও সমস্যা নেই। আপনারা ঘুরে আসুন’। 
যেদিন রাণা ওর মাকে নিয়ে শহরে গেল সেদিন দুপুরে খাওয়া দাওয়া শেষ করে পুকুর পারে এসে বসল অমর। নারকেল গাছ, আর সুন্দর ছায়া, নরম বাতাস বইছে । অমরের খুব পছন্দ এই পরিবেশ। ও চুপচাপ বসে ছোট মাছেদের জলে ভেসে ওঠা দেখছিল এক মনে ।
-‘কী বন্ধু নেই, তাই মন খারাপ!’
অমর মুখ ফিরিয়ে দেখল সুমিতাদি । সুমিতা কলেজে পড়ে। বয়েস প্রায় ২৪ / ২৫ হবে । দিদিকেও খুব ভাল লেগেছে অমরের । মিষ্টি দেখতে আর মিষ্টি কথাবার্তা।

একটা হালকা নীল শাড়ি আর সাদা ব্লাউজে সুন্দর লাগছে সুমিতাদিকে । অমর বলল –‘না না দিদি যে কি বল, তোমরা তো রয়েছ, আমার কোনও অসুবিধে হচ্ছে না ।‘
সুমিতা বলল-‘আমি তো মার মতো রাধতে পারি না, দুপুরে আজ আমি রেধেছিলাম, কেমন খেলে কে জানে?’
অমরকে দুপুরে খেতে দিয়েছিলো সাজিদ, দারুন রান্না। অমর তখন জানতে চেয়েছিল কে রেধেছে ! ও বলল –‘তাই বল তুমি রেধেচ, এক কথায় দারুন! আমি ভাবছিলাম এই রান্না খেলে ৪/৫ দিনেই মোট হয়ে যাব’।
-‘দূর তুমি এম্নিতেই এত প্রশংসা করছ !’ সুমিতা লজ্জা পেয়ে বলে।
অমর বলল –‘লজ্জা পেয়ে নয়, সত্তি কথা’।
সুমিতা মৃদু হেসে বলে-‘ঠিক আছে, কোনও কিছু দরকার হলে জানাবে কিন্তু। আমি আসি, ক্লাসএ যেতে হবে। সন্ধ্যায ফিরব ।
-‘ঠিক আছে দিদি’।
সুমিতার চলে যাওয়ার দিকে তাকিয়ে থাকে অমর। স্নিগ্ধ মিষ্টি দিদিকে ওর ভাল লাগে। আজকালকার মেয়েদের উগ্রতা নেই ওর মধ্যে। পিঠে একরাশ খোলা চুল কোমর পর্যন্ত পৌছেছে ।
-‘কি, কি দেখচো ভায়া ?’ হঠাত্* অবজ শুনে চমকে উঠে অমর ঘুরে তাকায়। সাজিদ কখন যেন এসে গেছে কাছে । লোকটা শক্ত সমর্থ আর কঠিন । তবে খুব কম কথা বলে। একয়দিন তো অমর এর সাথে কন্ন কথাই হয় নি। আজ হঠাত্* নিজে থেকে আলাপ করতে এলেও।
অমর বলে –‘না কিছু না। এস সাজিদদা, বস’ !
সাজিদ হঠাত্* বলে –‘বসে আর কি হবে? শালিকে ভাল করে দেখে নিতে দাও। রাতে মুঠ মারতে কাজে আসবে’।
অমর চমকে যায় কথা শুনে –‘ক কি কি বলছ তুমি ...’
ততক্ষণে সুমিতাদি বাগান পেরিয়ে বাড়ির কাছে চলে গেছে।
-‘যা শুনলে, তাই বললাম। ভায়া মালটাকে দেখেছ ভাল করে? কি জিনিস!’
অমরের গলা শুকিয়ে যায়। তুমি কর কথা বলছ সাজিদদা ? কি বলছ এসব?’ হঠাত্* করে এসব কথা শুনে ওর মাথা ঘুরে যায়। সাজিদ একটু চাপা গলায় চোখ ছোট করে বলে –‘তোমাদের ওই সুমিতার কথা বলছি। ভাই ওই পাছাটা ভাল করে দেখেচ, একবার পেলে ঠাপিয়ে কি মজা লাগবে ভাবতে পার?’
অমরের বধশক্তি লোপ পেয়ে গেল। কী বলছে লোকটা । স্কুলএ ছেলেরা মিলে প্রায় মেয়েদের নিয়ে বিভিন্ন কথাবার্তা হয়। অমর কিন্তু মেয়েদের নিয়ে অশ্লীল আলোচনা একেবারে পছন্দ করে না ।

তাই ওকে কেউ বেশি ঘটাও না । কিন্তু যৌনতা ব্যাপারটা ভালই বোঝে সে। তবে অশ্লীল ভাবনা ভাবে না । নিজেকে এসব থেকে বাচিয়ে রাখে । অথচ এখানে এসে এসব কী শুনছে সে? বাড়ির মালিকের মেয়ের প্রতি কাজের লোকের একি ভাবনা! আর সুমিতাদি কী সুন্দর নিষ্পাপ একটি মেয়ে1 ওকে নিয়ে মনে মনে এই ভাবনা পোষণ করছে এতদিনের বিশ্বস্ত কাজের লোক! অমর আর ভাবতে পারে না। ও হতভম্ব হয়ে গেছে। ওই সময় সাজিদ আরও কাছে এসে বলে –‘দাদাবাবু কী ভাবচো? এত সঙ্কোচ করার কী আছে? আমি সত্য কথাই বলছি । চল আমার কুটিরে। দুটো কথা বলা যাবে’।
কি আশ্চর্য ইচ্ছে না থাকলেও সম্মহিতের মতো অমর এগিয়ে যায় সজিদের সঙ্গে । বিকেলের আলোয় সাজিদ কে পাহাড় থেকে কেটে আনা এক শক্তিশালী পাথর বলে মনে হয়।
সাজিদের কুটিরে ঢুকেই একটা বোটকা গন্ধ লাগে অমরের নাকে । দেশী মদের খালি বটল মেঝেতে পড়ে আছে । আর বিড়ির আধ জলন্ত টুকরা বেশ কয়েকটি । একটা মোড়া তে ওকে বসতে বলে সাজিদ একটা গ্লাসে মদ ঢালে । অমরের ভয় ভয় করতে লাগলো। তবু ও উন্মুখ হয়ে কিছু শুনতে চায় । কে জানে কেন!

-‘শোন, তোমাদের ওই সুমিতাদি, একটা দারুন জিনিস। এরকম কচি আর টাটকা মাল আর বাজারে পাবে না । আমি বহুদিন ধরে দেখে যাচ্ছি সামানটাকে । কি বলব গুরু যখন স্নান করে এসে কাপড় মেলে না, মাইরি যা দৃশ্য । তারে কাপড় ছুড়ে দেবার সঙ্গে সঙ্গে বুক দুটি ঝাপিয়ে ওঠে । তিরতির করে কাপতে থাকে ঠাসা স্তন দুটি । মনে হয় তক্ষুনি গিয়ে শালী কে জাপটে ধরে পকপক করে দুধগুলো টিপে দি । কাছাকাছি থেকে ঠোট দুটি দেখবে, দুটি কমলালেবুর কোয়া । চুলের মুঠী ধরে চুষে খেতে হয় ওগুলোকে’।

এটুকু বলে সাজিদ একটু থামে । অমর যদিও এবাড়ির ছেলের বন্ধু তবু ওর কাছে কোনও সঙ্কোচ করে না সে কথা বলতে । অমরকে ওর মনে হয়েছে একটি নিরীহ ছেলে বলেই। সাজিদের চোখ একটু লালচে হয়ে গেছে গ্লাসে চুমুক দেবার পর। এদিকে অমর এই কথা গুলো নিশ্বাস বন্ধ করে শুনে যাচ্ছে । আশ্চর্য ওর প্রতিবাদ করার কোনও ইচ্ছে হল না । একটু আগেই পুকুর পারে কথা গুলো শুনতে অপরাধ বোধ হচ্ছিল কিন্তু এখন কেমন যেন এক অদ্ভুত ঘোর লাগছে ওর । বরং চোখের সামনে ওর প্রিয় সুমিতাদির সুন্দর মুখটা এবং শরীরটা ভাবতে চেষ্টা করল ও । সঙ্গে সঙ্গে শরীরে একটা অদ্ভূত শিরশিরে অনুভুতি এল।
সাজিদ বলে চলে –‘সন ভায়া, এস একটু ফুর্তি করে যাও। তুমি যদি বল তো মালটাকে একদিন পাকড়াও করি। খুব মজা হবে’।
-পাকড়াও মনে...’ এতখনে অমর দুটি শব্দ বলে । ওর গলাটা কেপে ওঠে।
-‘পাকড়াও মনে বঝ না , তুমি যে কি একটা। আরে ধরব, আর ঠেসে চুদব । দুজনে মিলে’ কি বল’।
অমর আর ওখানে দাড়ায় না । দৌড়ে বেরিয়ে পড়ে ওই ঘর থেকে । তারপর সোজা দৌড়য় নিজের রুমের দিকে ।
-‘রাতে জানতে আসব । ভেবে দেখ । এ মজা আর পাবে নাই গুরু....’
পেচন থেকে সজিদের গলা শুনতে পায় ও ।
নিজের রুমে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দিয়ে বিছানাতে গ এলিয়ে দেয় অমর । ওর এ কদিনের জীবনে এমন কথা ও কখন সনে নি। ওর একটা তীব্র অপরাধ বোধ আর ভাললাগা অনুভব হয় । ও বুঝতে পারে না কেন ওর প্যাণ্টের নিচে বাড়াটা তিত্তির করে কাপতে থাকে । চোখ বুজে নিজেকে বিছানায় এলিয়ে দিতেই ওর চোখের সামনে ভেসে ওঠে, না চাইতেও, সুমিতাদির অদ্ভুত সুন্দর চেহারা আর আকর্ষণীয় শরীরটা । অমর ভেবে অবাক হয় ও সুমিতাদি কে দেখেও ওর শরীর টা নিয়ে ভাবে নি। এখন ভাবছে । আর লাল হয়ে যাচ্ছে ওর চেহেরা । সুমিতার স্তন, সত্যি তো সুন্দর নিটোল। অমর দেখেছে, কিন্তু মন দেয় নি । উচু উচু দুটো শ্বেত পাথরের বাটির মতো উল্টান। সাজিদ কি ভুল বলেছে । পকপক করে টিপটে কি আরাম তাই না হবে ! কিন্তু সুমিতা যদি বাধা দেয় ? দেবেই ত ! ভায়ের বন্ধু কে ও কিছ করতে দেবে ? মোটেই না ! অমর ভাবছে গভীর ভাবে ! না সাজিদ আছে না । ওর গায়ের জোরে কি পর্বে নরম মেয়ে সুমিতা ? কিন্তু রাণা কি ভাববে ? দূর রাণাকে কেউ জানাবেই না। সুমিতা তো নাইই ..... অমর কখন যেন প্যান্ট চেন খুলে ওর দাড়িয়ে যাওয়া বাড়াটা বের করে এনে হালকা ভাবে ওটাকে ঘষে দিচ্ছে ।
ওর চোখ মুখ শক্ত হয়ে ওঠে । সাজিদ থাকলে কোনও বাধা দেবার কথাই আসে না । সাজিদ খাটের সঙ্গে ওর হাত মাথার ওপর চেপে ধরবে আর অমর পকপক করে স্তনদুটো.... আর পাছাটা । অফ উলটন কলসীর মতো .... বাড়াটা যদি ঠাপান যেত
? অমর আর ভাবতে পারে না .... অ নিজের বাড়াটা দ্রুত খিচতে লাগলো !
আর মনে মনে বলতে লাগলো সুমিতা তোমাকে পেলে চুদে চুদে শেষ করে ফেলবো!

রাতে খাবার টেবলে অমরের গলা দিয়ে খাবার যেন নামছে না। সাজিদ পরিবেষন করছে আর সুমিতা কাছেই বসে একটা হাত পাখা নিয়ে অমরকে বাতাস করতে করতে ওর সঙ্গে কথা বলছে । 
-জানি তোমার খুব খারাপ লাগছে এখানে, হঠাত্* ওরা তোমায় ফেলে চলে গেল । আমিও সরদিন কলেজ করে তমকে সময় দিতে পারছি না । শুধু এই রাত টুকু ছাড়া ।'
অমর শুকনো হাসে আর আড়চোখে সুমিতার দিকে টাকায়। অত্যন্ত মায়াবী একটি চোখ। সরল হাসি । টুসটুসে হালকা লাল ঠোটের পাপড়ি । বেশি দেখা যায় না। 
-'আর কিছু লাগবে?' সুমিতার প্রশ্নে চমকে যায় ও । ছি ছি কী সব ভেবেছে ও এই সুন্দর প্রতিমার মতো দিদি টিকে নিয়ে ওবেলা। সব ওই পাষণ্ড সজিদের জন্য।
অমরের ভেতর চলছে একটা চাপ দ্বন্দ । এই অবস্থায় কী খাবার নামে গলা দিয়ে। হঠাত্* সুমিতাদি বলল -আর একটু ভাত নাও না । 
-না না ঠিক আছে । 
-এই দেখ লজ্জা পাচ্ছ ত। দাড়াও । 
এই বলে সুমিতাদি নিজেই উঠে গেল ভাতের পাত্রটা আনতে । আর সেই সময়েই ঘটলো অঘটনটা । ডাইনিং চেয়ারের এক কোনে আটকে গেল ওর শারির একটা কোনা । হ্যাচকা টানে আচলটা নেমে আসল মসৃণ কাধ বেয়ে নিচে । অমরের চোখ সোজা স্তনের খাঁজে আটকে গেল । কী অসম্ভব সুন্দর নিটোল বুক, আর উচু দুটি টিলার মতো ঠাসাঠাসি করে দাড়িয়ে আছে ওরা । মেদহীন শরীর । ঝুকে শারীটাকে ছুটিয়ে নিতে চেষ্টা করছে সুমিতা। অমর খুব তাড়াতাড়িই চোখ সরিয়ে নিল, আর কিছু বিশেষ হয় নি ভাব দেখাল । দু মিনিটেই একটু অপ্রস্তুত হয়ে গেছিল সুমিতা , কিনদু দ্রুত নিজেকে সামলে নীল ও। তারপর একপ্রকার জোর করেই অমরকে আরএকটু ভাত দিল। অমরের চোখের সামনে তখন আঠার মতো সেটে গেছে সুমিতার ভারী বুক আর বুকের খাঁজটা । এত সুন্দর মেয়েদের স্তন হতে পারে, এত নিটোল সুগঠিত আর টসটসে, অমরের ধারণাই ছিল না। এই বয়সে ও কয়েকটা ছবি দেখেছে অর্ধ নগ্ন মেয়েদের। ওর ভাল লাগেনি । ওর বন্ধুর এসব নিয়ে কাড়াকাড়ি করে । ওর ভাল লাগে না । কিন্তু সুমিতাদি কে দেখার পর আর বিশেষ করে সাজিদের কথা শোনার পর ওর জীবন টা এক দুপুরেই অনেকটা এগিয়ে গেল । কোনও মতে খাবার টেবল ছেড়ে উঠে ও হাত মুখ ধুয়ে সুমিতা দিকে শুভরাত্রি জানিয়ে নিজের রুমে এসে পড়ল । ওর প্যান্টএ যে বাড়াটা বিশ্রী ভাবে ফুলে উঠছে সেটা ঢাকা দেওয়া এক কঠিন ব্যাপার হয়ে যাচ্ছে ।
Meri Nangi Bhabhi : Join for Indian Desi Maal
  


Forum Jump:


Users browsing this thread:
1 Guest(s)